এমপি আজিম হত্যা: গ্যাস বাবুর মোবাইল উদ্ধারে অভিযান

post-title

ছবি সংগৃহীত

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনারুল আজিম আনার হত্যা মামলার মোড় ঘুরতে শুরু করেছে।  এ মামলায় আটক জেলা আওয়ামী লীগের নেতা কামাল আহমেদ বাবু ওরফে গ্যাস বাবুকে ঝিনাইদহে আনা হয়েছে। তাকে নিয়ে শহরের গাঙ্গুলি মিষ্টান্ন ভান্ডার ও স্টেডিয়ামের পিছনে একটি পুকুরে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

ওই পুকুরে গ্যাস বাবু তার নিজের তিনটি মোবাইল ফোন ফেলে দিয়েছে বলে তদন্ত সংশ্লিষ্টদের জানিয়েছেন। আর ওই ফোন উদ্ধারের জন্য অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

অভিযান পরিচালনার জন্য  মামলার তদন্তকারী ঢাকার সহকারী পুলিশ কমিশনার মাহফুজুর রহমানের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের একটি টিম ঘটনাস্থলে অবস্থান নিয়েছেন। নিয়ে আসা হয়েছে জেলে ও সুইপারদের।

প্রাথমিকভাবে জাল ফেলে ওই মোবাইল উদ্ধারের চেষ্টা করা হবে ব্যর্থ হলে ডুবড়ি নামানো হবে বলে জানিয়েছেন তদন্ত সংশ্লিষ্টরা।

এর আগে মঙ্গলবার  গ্যাস বাবুকে কাশিমপুর কারাগার থেকে ঝিনাইদহ কারাগারে স্থানান্তর করা হয়। বাবুর দেওয়া তথ্যমতে অভিযান পরিচালিত হচ্ছে এবং তাকে দিয়ে নিশ্চিত করা হবে কোথায় মোবাইল ফোন তিনটি ফেলে দেওয়া হয়েছে।

জেলা শহরের পায়রাচর এলাকায় বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে সরকারের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা উপস্থিত রয়েছেন।

ঝিনাইদহ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ ফারুক আজম এই অভিযান চলাকালে উপস্থিত থাকার কথা।

অভিযান পর্যবেক্ষণের জন্য ডিবির প্রধান হারুন অর রশিদ ঘটনাস্থলে কিছুক্ষণের মধ্যে আসবেন বলে জানিয়েছেন মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা।

আজ সকাল থেকেই যে পুকুর দুটিতে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে তার আশপাশের এলাকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয় এবং সাধারণ মানুষের চলাচলে শিথিল করা হয়েছে।

গ্যাস বাবুকে চলতি মাসের ৫ তারিখে ঝিনাইদহ জেলা শহরের নিজ বাড়ি থেকে আটক করা হয়। এরপর তাকে নিয়ে যাওয়া হয় ডিবি অফিসে। পরবর্তীতে সে আদালতে দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়।

এসএ/সিলেট