শান্তিগঞ্জে রুমন হত্যায় ইউপি চেয়ারম্যানসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা

post-title

নিহত রুমন মিয়া।


সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ উপজেলার দরগাপাশা ইউনিয়নের সিচনি এলাকায় ইউপি চেয়ারম্যান সুফি মিয়ার ছেলে ফাহিম ও নাইমসহ সংঘবদ্ধ চক্রের অতর্কিত ছুরিকাঘাতে নোমান মাহমুদ রুমন (৩৫) হত্যার ঘটনায় দরগাপাশা ইউপি চেয়ারম্যান সুফি মিয়াসহ ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে৷

সোমবার (২৪ জুন) নিহত নোমান মাহমুদ রুমনের ভাতিজা এবং গুরুতর আহত সাবেক ইউপি সদস্য জামিল আহমদ পায়েলের পিতা আজিজুর রহমান বাদী হয়ে এ মামলাটি দায়ের করেন।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টায় সিচনী পয়েন্টে জমি সংক্রান্ত বিরোধ ও আধিপত্য বিস্তারের ধরে ইউপি চেয়ারম্যান সুফি মিয়ার দুই ছেলে ফাহিম আহমদ ও নাঈম আহমদ ও সংঘবদ্ধ চক্রের এলোপাতাড়ি  ছুরিকাঘাত শুরু করেন নোমান মাহমুদ রুমন ও সাবেক ইউপি সদস্য জামিল আহমদ পায়েলের উপর। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় দু’জনকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা নোমান মাহমুদ ওরফে রুমন মিয়াকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনার ৪ দিন পর সোমবার (২৪ জুন) নিহত নোমান মাহমুদ রুমনের ভাতিজা এবং গুরুতর আহত সাবেক ইউপি সদস্য জামিল আহমদ পায়েলের পিতা  আজিজুর রহমান বাদী হয়ে দরগাপাশা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সুফি মিয়াকে প্রধান অভিযুক্ত করে ২৪ জনকে আসামী করে এবং ১০-১৫ জনকে অজ্ঞাত করে মামলাটি দায়ের করেন৷

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে শান্তিগঞ্জ থানা পুলিশ৷ তবে হত্যার সাথে জড়িত মূল আসামীরা এখনো গ্রেফতার না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী৷

এ ব্যাপারে শান্তিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) কাজী মোক্তাদির হোসেন হত্যা মামলার দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এই ঘটনায় আমরা ইতিমধ্যে ৬ জনকে গ্রেফতার করেছি। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে আমাদের অভিযান অব্যাহত আছে।

এসএ/সিলেট