২০২৩ সালে প্রাকৃতিক দুর্যোগে বাংলাদেশে ১৮ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত

post-title

ফাইল ছবি

ঘূর্ণিঝড় ও পাহাড় ধসের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগের কবলে পড়ে গত বছর বাংলাদেশে অন্তত ১৮ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। বিশেষ করে ঘূর্ণিঝড় মোখা ও চট্টগ্রাম-কক্সবাজার অঞ্চলে ভারী বৃষ্টিপাতের ফলে সৃষ্ট পাহাড় ধসে অনেক মানুষ ঘরবাড়ি হারিয়েছে। নরওয়েভিত্তিক ইন্টারন্যাশনাল ডিসপ্লেসমেন্ট মনিটরিং সেন্টার (আইডিএমসি) থেকে গত মাসের মাঝামাঝিতে প্রকাশিত গ্লোবাল রিপোর্ট অন ইন্টারনাল ডিসপ্লেমেন্ট ২০২৪ প্রতিবেদেন এই তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বছর গোটা বিশ্বে যুদ্ধ সংঘাতে পড়ে প্রায় ৭ কোটিরও বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। এছাড়া প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে বাস্তুচ্যুত হয়েছে প্রায় ৮০ লাখ মানুষ। এর মধ্যে সংঘাত ও যুদ্ধের কারণে বাস্তুচ্যুত মানুষের সংখ্যায় শীর্ষে রয়েছে উত্তর আফ্রিকার দেশ সুদান। সেখানে গত বছর ৯০ লাখেরও বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। এর পরেই আছে সিরিয়া, ডি আর কঙ্গো, কম্বোডিয়া, ইয়েমেন, ফিলিস্তিনের মতো দেশগুলো।

অন্যদিকে প্রাকৃতিক দুর্যোগে ২০২৩ সালে বাস্তুচ্যুত মানুষের সংখ্যায় শীর্ষে আছে আফগানিস্তান। এর পরেই আছে পাকিস্তান, ইথিওপিয়া, তুরস্ক, চীনের নাম।

আইডিএমসির পরিচালক আলেকজান্দ্রা বিলাক বলেন, ২০২৩ সালে আইডিএমসি কোটি কোটি বাস্তুচ্যতদের যে সংখ্যা দেখিয়েছে তা হিমশৈলর চূড়া মাত্র। পূর্ববর্তী ও চলমান সংঘাত, যুদ্ধ এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগে অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত বহু মানুষকে এখনও তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে।

এসএ/সিলেট