ছাত্রলীগ কর্মী তানিম হত্যা মামলার আসামি উমেদ গ্রেফতার

post-title

ছবি সংগৃহীত

ছাত্রলীগ কর্মী তানিম হত্যা মামলার অন্যতম আসামী উমেদুর রহমান উমেদকে গ্রেফতার করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। সে নগরীর শিবগঞ্জ সোনারপাড়া এলাকার নবারুণ ১৩৪ নং বাসার মৃত দুলু মিয়ার পুত্র। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে নগরীর দলদলি চা বাগান এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সন্ত্রাসী উমেদ গ্রেফতারের খবরে এলাকায় স্বস্তি নেমে এসেছে। পুলিশ জানিয়েছে উমেদ হত্যা রাহাজানি সহ অন্তত ২০টি মামলার আসামি। ৫টি মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা ছিল।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন থেকে পুলিশ সন্ত্রাসী উমেদকে গ্রেফতারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলো। সে নগরীর মধ্যে থাকলেও স্থানীয় যুবলীগ নেতাদের আশ্রয় প্রশ্রয়ে গ্রেফতার এড়িয়ে নানা অপরাধ কর্মকান্ড চালিয়ে আসছিলো। ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে জড়িত উমেদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে ক্ষমতাসীন দলের টিলাগড় গ্রুপ কেন্দ্রিক একটি গ্রুপের ভাড়াটে হিসেবে কাজ করার। অভিযোগ রয়েছে টিলাগড়ে অভ্যন্তরীণ কোন্দলে নিহত ছাত্রলীগ কর্মী তানিম হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয়ার। তানিম হত্যা মামলার অন্যতম আসামিও সে। এছাড়া উপশহরের একটি অংশ, শিবগঞ্জ, সোনারপাড়া ও টিলাগড়ের একটি অংশে তার প্রভাব রয়েছে। মাদক সহ নানা অপরাধে জড়িত ছিল উমেদ। এছাড়া মহানগর যুবলীগের এক শীর্ষ নেতার সাথে সখ্যতার সূত্র ধরে ফেরারি আসামি হয়েও উমেদ এলাকায় নানা অপরাধ কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছিলো।

পুলিশ জানায়, সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের জন্য অসংখ্যবার পুলিশ গ্রেফতার করেছিল উমেদকে। ২০১৮ সালের ৭ জানুয়ারি ছাত্রলীগ নেতা তানিম হত্যান্ডের ঘটনা ঘটে। ওই হত্যা মামলার অন্যতম আসামি উমেদ। ওই সময়েও গ্রেফতার হয়েছিল সে। এছাড়া সাবেক ছাত্রদল নেতা আ ফ ম কামাল হত্যাকান্ডের আগে আম্বরখানায় দোকান ভাংচুর মামলারও অন্যতম আসামি উমেদ। এসএমপির বিভিন্ন থানায় অন্তত ১৫/২০টি মামলা রয়েছে উমেদের বিরুদ্ধে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ কমিশনার সাইফুল ইসলাম জানান, সিলেটের একজন দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী উমেদ। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ১৫/২০টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে বিচারাধীন মামলাও রয়েছে। সর্বশেষ ৫টি মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা ভুক্ত ছিল উমেদ। সে দীর্ঘদিন যাবত পলাতক থেকে সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল। গোয়েন্দা পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। তাকে শুক্রবার শাহপরান থানায় হস্তান্তর করা হয়। পরে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

এসএ/সিলেট