‘রাষ্ট্রপতি শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার’ অর্জন করলেন এ কে এম আতাউল করিম

post-title

ছবি সংগৃহীত

পানি বিশুদ্ধকরণ প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখায় মাইক্রো শিল্প ক্যাটাগরিতে ‘রাষ্ট্রপতি শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’ পেয়েছেন এবিএম ওয়াটার কোম্পানীর কর্ণধার বিশিষ্ট শিল্প উদ্যোক্তা এ কে এম আতাউল করিম। বৃহস্পতিবার (২৩ মে) ঢাকার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁর হাতে এ পুরস্কার তুলে দেন।

শিল্পমন্ত্রী ছাড়াও অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুস শহীদ এমপি, এফবিসিসিআই এর সভাপতি মাহবুবুল আলম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব জাকিয়া সুলতানা। 

রাষ্ট্রপতি শিল্প পুরস্কারের জন্য এবিএম ওয়াটার কোম্পানী ছাড়াও গাজীপুরের ইকো টেক্র লিমিটেড, নরসিংদীর প্রাণ ডেইরী লিমিটেড, ঢাকা পল্লবীর মীর আকতার হোসেন লিমিটেড, পাবনার স্কয়ার ফুড এন্ড বেভারেজ লিমিটেড, ঢাকার স্নো আউটাওয়্যার লিমিটেড, পাবনার স্কয়ার টয়লেট্রিজ লিমিটেডসহ দেশের প্রথমসারির ২০টি কোম্পানীকে এ পুরস্কার দেয়া হয়।

এবিএম গ্রুপ ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশের একটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান। এরই অঙ্গ প্রতিষ্ঠান এবিএম ওয়াটার কোম্পানী ২০০৩ সাল থেকে বাংলাদেশের পানি বিশুদ্ধকরণ কার্যক্রমের সাথে জড়িত হয়ে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। প্রতিষ্ঠানটি সবসময়ই বিশ্বের সর্বাধিক প্রচলিত আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের প্রতি সদা সচেষ্ট এবং সংকল্পবন্ধ। পানি বিশুদ্ধকরণের সবচেয়ে আধুনিক প্রযুক্তি রিভার্স ওসমোসিস টেকনোলজি ব্যবহার করে পুকুর, লেক, নদী ও সাগরের পানি পরিশোধন করে আসছে অত্যন্ত সুনামের সাথে।

ভূগর্ভস্থ পানির সংকট কমানোর জন্য বৃষ্টির পানি সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও পরিশোধনপূর্বক ব্যবহার, নবায়ণযোগ্য জ্বালানী হিসেবে সোলার এনার্জি ব্যবহার করে পানি উত্তোলন ও পরিশোধন কার্যক্রম পরিচালনা করে বাংলাদেশের পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বড় ও দক্ষ জনশক্তি তৈরীতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করছে। এই দক্ষ জনশক্তি মধ্যপ্রাচ্যসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে কর্মী হিসেবে নিয়োজিত হচ্ছে এবং বাংলাদেশের জন্য বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে সফল ভূমিকা পালন করছে। 

প্রতিষ্ঠানটি সারা বাংলাদেশে ছোট বড় প্রায় ২৫০ টিরও বেশী ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট স্থাপন করেছে। যার মাধ্যমে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ১২ কোটি ৯২ লাখ ১৬ হাজার লিটার পরিশোধিত খাবার পানি সরবরাহ করা হচ্ছে।

 এ সাফল্যের ধারাবাহিকতায় এ কে এম আতাউল করিম কে শিল্প স্থাপনে গুরুত্বপুর্ণ অবদানের জন্য ২০২৩ সালেও মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন বঙ্গবন্ধু এ্যাওয়ার্ড” প্রদান করেন। 

‘কিং অব ওয়াটার’ খ্যাত এবিএম ওয়াটার কোম্পানীর সারা দেশে উল্লেখযোগ্য ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট এর মধ্যে রয়েছে-গোপালগঞ্জ টুঙ্গিপাড়ায় পাটগাথি ও কুশলী উপজেলার প্ল্যান্ট, যা প্রতি ঘন্টায় ১ লক্ষ ৩৫ হাজার লিটার, লক্ষীপুর পৌরসভায় প্রতিঘন্টায় ৩ লক্ষ লিটার, নেত্রকোণা মোহনগঞ্জ উপজেলায় প্রতিঘন্টায় ২ লক্ষ ৫০ হাজার লিটার, হবিগঞ্জ মাধবপুর পৌরসভায় প্রতিঘন্টায় ২ লক্ষ লিটার, পাবনা সাথিয়া পৌরসভায় প্রতিঘন্টায় ২ লক্ষ ৫০ হাজার লিটার, চাঁদপুর শাহরাস্তি পৌরসভায় প্রতিঘন্টায় ২ লক্ষ ৫০ হাজার লিটার এবং জামালপুর মেলন্দাহ পৌরসভায় প্রতিঘন্টায় ১ লক্ষ ৮০ হাজার লিটার পানি পরিশোধন করছে। 

এছাড়া রিভার্স সিমোসিস বা লবণাক্ত পানি পরিশোধন প্ল্যান্ট স্থাপনেও বাংলাদেশে সাফল্যের পরিচয় দিয়েছে এই কোম্পানী। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হিসেবে রয়েছে-চট্টগ্রাম পোর্ট, যা প্রতিঘন্টায় ৪ লক্ষ লিটার, পায়রা পোর্ট প্রতিঘন্টায় ২ লক্ষ ৫০ হাজার লিটার, বাংলাদেশ নেভি চট্টগ্রাম প্রতিঘন্টায় ২ লক্ষ ৮৪ হাজার লিটার, বাংলাদেশ নেভি মংলা প্রতিঘন্টায় ৬০ হাজার লিটার এবং বাংলাদেশ নেভি পটুয়াখালী প্রতিঘন্টায় ৫০ হাজার লিটার পানি পরিশোধন হচ্ছে।


এসএ/সিলেট