বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে পাঁচ ম্যাচ টি-টোয়েন্টি

বড় দল-ছোট দল বলে কিছু নেই, সিরিজে জয় চাই: শান্ত

post-title

ছবি: বিসিবি

জুনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং যুক্তরাষ্ট্রে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের নবম আসর। তার আগে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ দল। প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে। টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচ মাঠে গড়াচ্ছে আজ শুক্রবার (৩ মে)।
ধরণা করা হচ্ছে, এই সিরিজে বিশ্বকাপের স্কোয়াড চূড়ান্ত করতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাবে বাংলাদেশের টিম ম্যানেজম্যান্ট। তবে পরীক্ষা-নিরীক্ষার হলেও এ সিরিজ জিততে চান বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত।
বৃহস্পতিবার (২ মে) প্রথম ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে নিজের এমন মনোভাবের কথা তুলে ধরেন গণমাধ্যমে। ঘরের মাঠে ফেভারিট হয়ে মাঠে নামলেও সফরকারীদের হালকাভাবে নিচ্ছেন টাইগার অধিনায়ক।
নাজমুল হোসেন শান্ত বলেন, ‘প্রথমত অধিনায়ক হিসেবে এ সিরিজটা জিততে চাই। এটাই প্রথম লক্ষ্য। আর প্রস্তুতি তো অবশ্যই, ওটা আমাদের মাথায় থাকবে। প্রস্তুতি নিতে গিয়ে যে আমরা খেলাটা হালকাভাবে দেখব কিংবা অনেক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করব, তা-ও নয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন হবে না। এ কারণে যে ১৫টা প্লেয়ার (খেলোয়াড়) এখানে আছে, সবার এই (জিম্বাবুয়ে) দলকে হারানোর সামর্থ্য আছে। প্রস্তুতি বলব না। আমি বলব সুন্দর প্রস্তুতি এবং কোনো কোনো জায়গায় ভালো প্রস্তুতি নিয়ে যেন আমরা বিশ্বকাপে যেতে পারি।’
আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে জায়গা হয়নি জিম্বাবুয়ের। উগান্ডার কাছে হেরে ছিঁটকে যায় বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব থেকে। এরপরও টি-টোয়েন্টির অনিশ্চিয়তার কথা সবাইকে মনে করিয়ে দেন টাইগার দলপতি।
শান্ত বলেন, ‘টি-টোয়েন্টিতে বড় দল, ছোট দল নেই। আপনি যেটা বললেন, জিম্বাবুয়ে উগান্ডার কাছে হেরে গেছে। এই জিম্বাবুয়ে কিন্তু কিছুদিন আগে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়েছে। ওই রকম চিন্তা করলে খুব বেশি পার্থক্য মনে হয় না। এখানে ম্যাচটা আমরা কীভাবে খেলছি, কীভাবে প্রস্তুত হচ্ছি, নিজেদের আত্মবিশ্বাস কীভাবে গড়ে তুলছি। এতটুকু বলতে পারি, সিরিজটা এত সহজ হবে না। অনেক প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ সিরিজই হবে। কারণ, তারাও অনেক ভালো দল।’
বিশ্বকাপের চূড়ান্ত দলে জায়গা করে নিতে জিম্বাবুয়ে সিরিজ বেশ কয়েকজন ক্রিকেটারদের জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ। নাজমুল হোসেন শান্তর মতে বিশ্বকাপ স্কোয়াড নির্বাচনে শুধু জিম্বাবুয়ে সিরিজ নয়, সর্বশেষ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষের পারফরম্যান্সও বিবেচনায় আনা হবে।
বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে যে সিরিজটা খেলেছি, আর এই সিরিজে যে দলটা আছে। বিশ্বকাপে বেশির ভাগ খেলোয়াড় এখান থেকে যাবে। যদি সবাই সুস্থ থাকে। হ্যাঁ, দুএকজন এদিক-ওদিক হতে পারে। তবে বেশির ভাগই এখান থেকে যাবে। নির্দিষ্ট করে তিন-চারটা পয়েন্টে মনোযোগ থাকবে, এভাবে বলা মুশকিল। আমি চাইব প্রতিটি জায়গায় যেন ফোকাস থাকে। প্রতিটা জায়গায় যেন আমরা ভালোভাবে প্রস্তুত হয়ে বিশ্বকাপে যেতে পারি।’
পাঁচ ম্যাচের সিরিজের প্রথম তিন টি-টোয়েন্টি হবে চট্টগ্রামে। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে এর প্রথমটি মাঠে গড়াবে শুক্রবার (৩ মে) সন্ধ্যা ৬টা।

SI/03/020524