ম্যানচেস্টার-রিয়াল ম্যাচ

সমতায় শেষ বার্নাব্যুর মহারণ

post-title

ফাইল ছবি

একদল বর্তমানে ইউরোপ সেরা আর সবচেয়ে বেশি বার শিরোপা জয়ী অপর দল। স্বাভাবিকভাবেই ইউরোপের অন্যতম সেরা এই দুই দলের মধ্যে লড়াইটা উপভোগ্যই হওয়ার কথা। ম্যাচটিতে হয়েছেও তাই। পেন্ডুলামের মত দুলতে থাকা ম্যাচটির ভাগ্য একেক সময় একেক দলের দিকে গিয়েছে। কখনো এগিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ আবার কখনো ম্যানচেস্টার সিটি। তবে শেষ পর্যন্ত সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর এই লড়াইয়ে কোন দলই জয় ছিনিয়ে আনতে পারিনি।
মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) রিয়াল মাদ্রিদের হোম গ্রাউন্ড সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগের খেলায় রিয়াল মাদ্রিদ বনাম ম্যানচেস্টার সিটির মধ্যকার হাইভোল্টেজ ম্যাচ ৩-৩ গোলে ড্র হয়েছে।
মাঠে এসে দর্শকরা ঠিকভাবে বসতে না বসতেই গোল পেয়ে যায় গতবারের চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি। তবে গোল খেয়ে ভরকে না যে উল্টো পাল্টা আক্রমণে দুই গোল দিয়ে লিড পায় রিয়াল মাদ্রিদ। এরপর ৬৬ মিনিটে ফিল ফোডেনের দুর্দান্ত গোলে সমতা ফেরায় সিটি। শুধু তাই নয়, পাঁচ মিনিটের মধ্যে এগিয়েও যায় তারা। পিছিয়ে পড়ে ফেদে ভালভার্দের গোলে জয় সমতা আনে রিয়াল। ম্যাচের বাকি সময়ে আর কোনো গোল না হওয়ায় ড্র নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় দুই দলকে।
রিয়ালের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে ম্যাচের প্রথম মিনিট থেকেই ছড়িয়ে পড়ে উত্তেজনা। ঘড়ির কাঁটা মিনিট পেরোনোর আগেই দুই দলই একটি করে আক্রমণ শানায় এবং জ্যাক গ্রিলিশকে ফাউল করে হলুদ কার্ড দেখেন অরলিয়েঁ চুয়েমেনি। আর সেই ফাউল থেকে পাওয়া ফ্রি কিকেই গোল করেন বের্নার্দো সিলভা। ২৫ গজ দূর থেকে বাঁ পায়ে বুদ্ধিদীপ্ত এক শটে বল জালে জড়ান এ পর্তুগিজ মিডফিল্ডার।
শুরুতে গোল খেয়ে রিয়াল গোল ফেরত দেয় ম্যাচের ১২তম মিনিটে। বক্সের বাইরে থেকে শট নেন কামাভিঙ্গা। কিন্তু তার শট রুবেন দিয়াজের পায়ে লেগে দিক বদলে জড়ায় জালে।
দুর্দান্ত এক প্রতি-আক্রমণ থেকে এর দুই মিনিট পর রিয়ালকে এগিয়ে দেন রদ্রিগো। ভিনিসিয়াসের কাছ থেকে নিজ অর্ধে বল পেয়ে দারুণ রানিংয়ে প্রতিপক্ষ বক্সে ঢুকে পড়েন ব্রাজিলিয়ান তারকা। তার আলতো করে বাড়ানো বল ম্যানুয়াল আকাঞ্জির পায়ে লেগে ফের দিক বদলে জালে জড়ালে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে যায় রিয়াল।
২-১ গোলের সমতায় শেষ হয় প্রথমার্ধ। বিরতির পর আক্রমণের ধার বাড়ায় সিটি। কয়েকবার আক্রমণেও যায় তারা। যদিও আসেনি কাঙ্ক্ষিত গোলটি। এর মধ্যে অবশ্য সিটি ডিফেন্সের ভুলে বল পেয়ে তৃতীয় গোলটা প্রায় পেয়েই গিয়েছিল রিয়াল। তবে বেলিংহামের শট যায় পোস্টের বাইরে দিয়ে। ৫৬ মিনিটে দারুণ এক সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেননি ভিনি। এরপর দ্রুত কয়েকবার আক্রমণে যায় সিটি। কিন্তু মেলেনি সমতা সূচক গোলটি।
৬৬তম মিনিটে ফিল ফোডেন বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া শটে ম্যাচে সমতায় ফেরান।
৭১তম মিনিটে ফোডেনের সেই গোলটিই যেন আরেকবার ফিরিয়ে আনেন গাভারদিওল। অসাধারণ এক শটে বার্নাব্যুকে স্তব্ধ করে দেন এ ক্রোয়াট ডিফেন্ডার।
রিয়াল অবশ্য এরপরও হাল ছাড়েনি। ম্যাচের ৭৯ মিনিটে ভিনিসিয়াসের মাপা ক্রসে দুর্দান্ত ভলিতে বল জালে জড়িয়ে রিয়ালকে ফের ম্যাচে ফেরান ফেদে ভালভের্দে।
১৭ এপ্রিল রাতে ইতিহাদে রিয়াল মাদ্রিদকে আতিথ্য দেবে সিটি।

SI/01/100424